কু-যুক্তি, কু-স্বভাব ও ছাগল সমাজ (ফেব্রুয়ারি ২০২০)

এক

বাংগালি মুসলানেরা বরাবরই তাদের স্রষ্টা কি করবেন না করবেন বা কি করেছেন না করেছেন তা ঠিক করে দেন।

যেমন বাংগালি মুসলমাবদের বয়ানে, চায়নায় একটা সম্প্রদায়ের প্রতি অবিচারের জন্য করোনা ভাইরাস আউটব্রেক হইলো চাইনিজদের উপ্রে আল্লাহর গজব।

আরব দেশে গিয়ে নারীদের ধর্ষণ সহ নানান অত্যাচারে জর্জরিত কিংবা ইয়েমেন সিরিয়ায় সহ পুরো মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যুআর নির্যাতন হলো মুসলমানদের উপর আল্লাহর পরীক্ষা।

কে যেন বলেছিলো খোদা বাস করেন মানুষের অন্তরে। আপাতত বাংগালিদের কথা শুনে আর দেখে মনে হয় খোদা বাস করে বাংগালিদের অন্তরে।

 

দুই

ফেসবুকে আস্তিক নাস্তিক আর জামাতি বামাতি সব ধরণের মানুষ থাকাটা মজার। পুরা উল্টাপাল্টা দৃষ্টিভঙ্গির নিউজ পাওয়া যায়৷ একটা স্পষ্ট সামারি পাওয়া যায়।

যেমন আজ কয়েকজন অতিপরিচিত সেকুলার ও নাস্তিকের পোস্টে দেখলাম কোন এক জামাতি প্রকাশনীর মালিককে ধরে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রতিবাদ করা হচ্ছে। তার মানে এই নয় যে ওই জামাতির আদর্শের প্রতি তাদের ঘৃণা নেই। সেটা ব্যক্ত করতেও তারা পিছপা হ-ন নাই।

তারপর আরো কিছু স্ক্রোল করে যাবার পরে কিছু হোমরা চোমরা জামাতিকে দেখলাম তারা সেকুলার ও নাস্তিক দুই সম্প্রপদায়ের উপরে যেন আল্লাহর গজব পরে সেই কথা সরাসরি কিংবা ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বলছে। কেউ বলে তাদের জামাতের সৈনিক ভাই ধরে নিয়ে গেলে প্রতিবাদ করে না। নাস্তিক কতল করো আর সেকুলারিজমকে ঘৃণা করো টাইপের ডায়লগে যুদ্ধ করছে। অমুসলিম অথবা সেকুলাররা মরলে বলে শুধু মাত্র নিউজ হয়। এখনই যুদ্ধে যাওয়া দরকার। ইত্যাদি।

তো, এইসব দেখে, কারা মানবিক সেইটা যদি এইসব ছোট খাটো তুলনামূলক দর্শন থেকে না টের পায় তাহলে তাদের রকেটে চইড়া চান্দের দেশে গিয়া আযাহারীর সাথে গলা মিলাইয়া হিন্দি ধুমধারাক্কা গানের সুরে বাংলায় ইসলামি গান গাওয়া ফরজ।

 

তিন 

বাংলা কথা কওয়ায় এখন দুইডা স্ট্যান্ডার্ড প্রচলিত আছে। এই দুই প্রমিত পদ্ধতি না থাকলে জাতের হওয়া যায় না।

এক। বাংলার লগে ইংরেজি কওয়ার বা লিখার। তিনলাইন বাংলায় একলাইন ইংরাজি থাকবো।

দুই। বাংলার লগে আরবি কওয়ায় বা লেখার। প্রতি দশ শব্দের মধ্যে তিনটা থাকবো আরবি।

প্রথমটা আমি করি। আগে কম হইতো এখন বেশি হয়। হইতে পারে অলসতার লেইগা। অনেক কিছুই আছে যা ইংরেজিতে বাংলার চাইতে ছোট কইরা বইলা ফেলা যায়। তারপর মনে করি একটু গ্লোবালাইজেশন হইলো।

দ্বিতীয়টা করে প্যারাডক্সিকাল সাজিত টাইপের জ্ঞানের নামে কানার খোলসে আটকা পাব্লিকেরা। এটাতে তারা আরেকটু সহি পূতপবিত্র উপায়ে বাংলা কইলো বইলা মনে করে।

তয় কিছু পাব্লিল আছে যারা তিনলাইন ইংরেজিতে আমেরিকান নয়তো ব্রিটিশ টানে বাংলা কিছু শব্দ উচ্চারণ করে। এরা বিত্তশালী৷ তেমনি আরবি কওয়ার মাঝেও কিছু আছে এরাবিক উচ্চারণে বাংলা কয়। এরাও বিত্তশালী।

তারপর এইদুই স্ট্যান্ডার্ড বাংলার বাইরে যারা বাংলা কয় বা লেখে তারাই আসল বাংলা কয়।

Leave a Reply

Close Menu